আমাকে হেয় করার জন্য অনেকেই বিভিন্ন ভাবে উঠে পড়ে লেগেছে : হিরো আলম

40
আমাকে হেয় করার জন্য অনেকেই বিভিন্নভাবে উঠে পড়ে লেগেছে হিরো আলম

ব্যক্তিগত হিংসা থেকেই হিরো আলমকে ফাঁসানোর চেস্টা !

সুপ্রভাত বগুড়া (বিনোদন): সম্প্রতি বিভিন্ন মিথ্যে কেলেঙ্কারির অপবাদ দিয়ে হিরো আলমকে অপদস্ত করতে ছিল একটি মহল। এর প্রধান দুই ব্যক্তি হলো স্থানীয় সাংবাদিক আকাশ নিবিড় ও প্রবাসী পরান মাহমুদ। এখন কথা হচ্ছে কেন আকাশ নিবির ও পরান মাহমুদ হিরো আলমের বিরুদ্ধে কথা বলেছে, এটা মূলত সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত হিংসা থেকে এর বাহিরে আর কিছু নয়। যে সাথী আক্তার মেয়েটিকে দিয়ে পরান মাহমুদ ভিডিও বানিয়ে ছিল আজ সেই সাথি আকতার হিরো আলমের ফেসবুক পেজ থেকে লাইভে এসে তার সমস্ত অপরাধ প্রকাশ করে ক্ষমা চেয়েছে।

এদিকে পরান মাহমুদ এর বিষয় খতিয়ে দেখতে গিয়ে ধরা পরল সকল তথ্য। মূলত পরান মাহমুদ যে ব্যক্তিটি হিরো আলমের বিরুদ্ধে ফেসবুক লাইভে এসে কথাবার্তা বলেছে সে ব্যক্তিগত আক্রোশ থেকে বলেছে এবং তার ফেসবুক পেজ অনুসন্ধান করে দেখা গেল সে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন মেয়েদেরকে দিয়ে তার পেজ এ লাইভ এ আনে সে ওই পেজ বুস্ট করার মাধ্যমে সকলের কাছে পৌঁছে দেয় এবং যাদেরকে তার ফেসবুক লাইভে আনে তাদের সাথে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তোলে। মূলত তার টার্গেট এই হচ্ছে, বিভিন্ন মেয়ে। এরকম বেশ কিছু গোপন ফেসবুক চ্যাট প্রকাশ হয়েছে। সে বিভিন্ন মেয়েদেরকে ফুসলিয়ে ব্ল্যাকমেইল করে।

অন্যদিকে আকাশ নিবিড় হচ্ছে বগুড়ার স্থানীয় সাংবাদিক তার বিরুদ্ধে তেমন কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি কিন্তু এটা প্রমাণিত যে আকাশ নিবির হচ্ছে হিরো আলমকে অপদস্থ করার মূল নায়ক। এদিকে হিরো আলম বলেন, আমাকে হেয় করার জন্য অনেকেই বিভিন্নভাবে উঠে পড়ে লেগেছে। আমাকে উপরে উঠতে না দেওয়ার জন্য তারা এই ব্যবস্থা করছে। আর যারা এই কাজটি করছে তারা মূলত আমার ক্ষতি করার জন্য এই কাজটি করে যাচ্ছেন।

হিরো আলম আরও বলেন, যে মেয়েটি আমার নামে থানায় অভিযোগ করেছে আমি সেই সাথী আক্তার কে নিয়ে লাইভে এসেছিলাম। লাইভে এসে অকপটে স্বীকার করে এবং দোষীদের কে চিহ্নিত করে বলে তাদের স্বার্থ হাসিলের জন্য আমাকে ব্যবহার করেছে।

যে মানুষটা সাহস দেখিয়েছেন সংসদে যাওয়ার, সাহস দেখিয়েছেন প্রতিবাদী হবার। যা কিনা আমাদের অনেক তথা কথিত সুশীলদের মাঝে নেই ৷ অনেকেই দেখেছেন তাকে নিয়ে অসংখ্য ট্রল হাসাহাসি নির্বাচনের সময়, সাংবাদিকরা টিভিতে ডেকে এনে তাকে অপমান করছে কেবল মাত্র তিনি নোমিনিশন কিনেছিলেন বলে! এত অপমান এত ট্রল তারপর এই লোক কি সুন্দরভাবেই সব সামলেছেন!

তার কাছ থেকে শিখার অনেক কিছুই আছে। একটা ডিগ্রি, আর বইয়ের কয়েকটা পাতা পড়াই শিক্ষিত আর অশিক্ষিত মানুষের মাপকাঠি হতে পারে না। এখানে উল্ল্যখ্য, ২০১৬ সালে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে আলোচনায় আসেন আশরাফুল আলম ওরফে ডিশ আলম ওরফে হিরো আলম।

বগুড়ার এরুলিয়া গ্রাম থেকে ঢাকা এসে ক্রমশ নিজের জায়গা করে নেন আলম। ২০১৭ সালে হিরো আলম অভিনীত প্রথম ছবি মার ছক্কা মুক্তি পায়। ২০১৮ সালে তিনি বিজু দ্য হিরো নামে একটি বলিউড চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য চুক্তিবদ্ধ হন। এ ছাড়া বাংলাদেশে বেশ কিছু বিজ্ঞাপনচিত্র ও স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন।