করোনায় বিশেষ ক্ষমায় বগুড়া জেলখানা থেকে ২২বছর পর মুক্ত হলেন আবু সাঈদ !

31
করোনায় বিশেষ ক্ষমায় বগুড়া জেলখানা থেকে ২২বছর পর মুক্ত হলেন আবু সাঈদ ! --সুপ্রভাত বগুড়া

স্টাফ রিপোর্টার: আজ রোববার দুপুরে বগুড়া জেলখানা থেকে ২২ বছর পর মুক্ত হলেন আবু সাঈদ (৪৯)। তিনি বগুড়ারদুপচাঁচিয়া উপজেলার মোস্তাপুর এলাকার গয়ের আলীর ছেলে। করোনা পরিস্থিতিতে সারাদেশে সরকারের বিশেষ ক্ষমায় এবার ৩২৯ জন সাজাপ্রাপ্ত আসামী মুক্তি পেয়েছেন। বগুড়া থেকে শুধু মাত্র ক্ষমা পেয়েছেন আবু সাঈদ।

বগুড়া জেলখানা সুত্রে জানা যায়, ১৯৯৯ সালে নওগাঁ জেলার বদলগাছি এলাকায় ঘটা হত্যা মামলা আসামী আবু সাঈদ গ্রেফতার হোন। ২০০৩ সালের নওগাঁ জেলা দায়রা জজ আদালতে রায় হয় মামলার। রায়ে ১ জনের ফাঁসি, ২ জনের যাবজ্জীবন সাজা হয় ও ১ জন খালাস পায়। হত্যার মামলার ঘটনায় গ্রেফতার হওয়ার পর থেকে আবু সাঈদ বগুড়া জেলখানায় রয়েছেন প্রায় ২২ বছর ধরে।

বগুড়া জেলখানা গেটে তার সাথে কথা হয়। আবু সাঈদ বলেন, মনে হচ্ছে নতুন জীবন পেলাম। জানিনা কোন ভাল কাজের জন্য সরকার আমাকে মুক্তি দিল। জেলখানার চারদেয়াল হয়েছিল জীবনের সঙ্গী। সরকারের বিশেষ ক্ষমায় আজ মুক্তি পেয়ে আবার বাড়ি ফিরতে পারছি। প্রায় ২২ বছর পর আবার পরিবার ও আত্মীয় স্বজনদের সাথে দেখা হবে। আবার পরিবার পরিজন নিয়ে স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে পারব।

আবু সাঈদকে নিতে তার ছোটবোন দুলালী ও দুলালীর ছোট ছেলে এসছেন। বগুড়া জেলখানার জেলার শরিফুল ইসলাম জানান, করোনা পরিস্থিতিতে সরকারের বিশেষ ক্ষমায় এবার সারাদেশে সাজাপ্রাপ্ত ৩২৯ জনকে বন্দীকে মুক্তি দেয়া হয়েছে। বগুড়া জেলখানা থেকে ১ জন বন্দি মুক্তি পেয়েছেন।

মুক্তি পাওয়া যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামী আবু সাঈদ (৪৯)। বগুড়া জেলখানায় প্রায় ২২ বছর ধরে আছেন। সুস্থ স্বাভাবিক জীবনে ফিরছে আবু সাঈদ। মুক্তি পেয়ে বাড়ি যাবার সময় মানবাধিকার সংস্থা আইআরএসওপি এর পক্ষ থেকে আবু সাঈদকে খাদ্য সামগ্রী  দেয়া হয়।

খাদ্য সামগ্রীতে ছিল ২৫ কেজি নাজির শাই চাল, ৫ কেজি মসুর ডাল, ৫ কেজি আলু, ৫ কেজি পেয়াজ, ৩ লিটার সয়াবিন তেল, ২ কেজি লবণ, ২ কেজি চিনি, ৬টা কাপড় ধোয়ার গুড়া সাবান, ৬টা ডেটল সাবান ও ৫টা মাস্ক।