গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ৪৬ জনের প্রাণ কেড়ে নিলো করোনাভাইরাস; নতুন আক্রান্ত ৩৪৮৯ জন !

51
গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ৪৬ জনের প্রাণ কেড়ে নিলো করোনাভাইরাস; নতুন আক্রান্ত ৩৪৮৯ জন। ছবি-সংগ্রহ

সুপ্রভাত বগুড়া (জাতীয়): দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ৪৬ জনের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে করোনাভাইরাস (কভিড-১৯)। ফলে ভাইরাসটিতে মোট দুই হাজার ১৯৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন আরো তিন হাজার ৪৮৯ জন। ফলে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়ালো এক লাখ ৭২ হাজার ১৪২ জন।

বুধবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনাভাইরাস বিষয়ক নিয়মিত হেলথ বুলেটিনে এ তথ্য জানান অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা। নাসিমা সুলতানা জানান, করোনাভাইরাস শনাক্তে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ১৫ হাজার ৮৮৩টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। ১৫ হাজার ৬৭২টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এ নিয়ে দেশে মোট নমুনা পরীক্ষা করা হলো আট লাখ ৮৯ হাজার ১৫২টি। নতুন নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয়েছে আরো তিন হাজার ৪৮৯ জনের মধ্যে।

ফলে শনাক্ত করোনা রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল এক লাখ ৭২ হাজার ১৪২ জনে। তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় যে ৪৬ জন মারা গেছেন তাদের মধ্যে পুরুষ ৩৮ জন এবং নারী ৮ জন। মৃত ৪৬ জনের মধ্যে ২০ বছরের বেশি বয়সী ২ জন, ত্রিশোর্ধ্ব ২ জন, চল্লিশোর্ধ্ব একজন, পঞ্চাশোর্ধ্ব ১৫ জন, ষাটোর্ধ্ব ১৬ জন, সত্তরোর্ধ্ব ৬ জন, ৮০ বছরের বেশি বয়সী ৩ জন এবং ৯০ বছরের বেশি বয়সী একজন রয়েছেন।

মৃতদের মধ্যে ঢাকা বিভাগের ১২ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের ১৪, রাজশাহী বিভাগের ৩, খুলনা বিভাগের ৯, রংপুর বিভাগের ১, সিলেট বিভাগের ৪ এবং বরিশাল বিভাগের ৩ জন রয়েছেন। এর মধ্যে ৩৮ জন মারা গেছেন হাসপাতালে বাকি ৮ জন বাসায়।

করোনাভাইরাসে মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে- ঢাকা বিভাগে ৫০ দশমিক ৮০ শতাংশ, চট্টগ্রামে ২৫ দশমিক ৯৯ শতাংশ, রাজশাহীতে ৫ দশমিক এক শতাংশ, খুলনায় ৪ দশমিক ৮২ শতাংশ, বরিশালে ৩ দশমিক ৬৯ শতাংশ, সিলেটে ৪ দশমিক ৩২ শতাংশ, রংপুরে ৩ শতাংশ এবং ময়মনসিংহ বিভাগে ২ দশমিক ৩৭ শতাংশ রয়েছেন।

তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন আরো দুই হাজার ৭৩৬ জন। এতে মোট সুস্থ রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ৮০ হাজার ৮৩৮ জনে। বুলেটিনে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষার তুলনায় রোগী শনাক্তের হার ২২ দশমিক ২৬ শতাংশ।

সবমিলিয়ে, নমুনা পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার ১৯ দশমিক ৩৬ শতাংশ। এখন পর্যন্ত রোগী শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৪৭ দশমিক ৯৬ এবং মৃত্যুর হার এক দশমিক ২৮ শতাংশ। সংবাদ সম্মেলনে, করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানানো হয়।