ঝিনাইদহ ২ টার পর দোকানপাট বন্ধ, পশুহাটে শত শত লোক সমাগম, চলছে রমরমা বেঁচা-কেনা!

23
ঝিনাইদহ ২ টার পর দোকানপাট বন্ধ, পশুহাটে শত শত লোক সমাগম, চলছে রমরমা বেঁচা-কেনা! ছবি-রাসেল আহম্মেদ

সুপ্রভাত বগুড়া (রাসেল আহাম্মেদ , ঝিনাইদহ): স্তব্ধ নিরব পুরো পৃথিবী শুধু করোনার ভয়ে, বাংলাদেশে ও একই অবস্থা, ৬৪ জেলার মধ্যে গ্রিন জোন হিসাবে চিন্হিত করা হয়েছিল,কিন্ত তারপর ঝিনাইদহে আক্রান্তর সংখ্যা দিন দিন জেনো বেড়েই চলেছে। ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসকের নির্দেশে জেলা covide 19 এর কমিটির আদেশ ক্রমে জেলায় ২ টার পর সকল দোকান পাট বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে,দোকান পাট বন্ধ হলেও পশু হাট সচল রয়েছে।

মহামারি করোনার মধ্যেও ঝিনাইদহ সদর উপজেলার বৈডাঙ্গার পশুহাটে শত শত মানুষ চলছে রমরমা বেঁচা-কেনা। সারা পৃথিবী যখন স্তব্ধ নিরব করোনার ভয়ে মানুষ নির্বাক বার বার বলা হচ্ছে আপনারা অযথা অপ্রয়োজনে ঘরের বাইরে জাবেন না। কিন্ত মানুষ কি আর কার কথা শুনে, সব সচেতনতা বার্তা উপেক্ষা করে মানুষ ঠিকই অযথা অপ্রয়োজনে ঘরের বাইরে আর সব বাধা উপেক্ষা করে দেশের এই ক্লান্তিলগ্নে পশুর হাট বসিয়েছে ঝিনাইদহ সদর উপজেলার বৈডাঙ্গা বাজারে।

১৬ জুন মঙ্গলবার সকাল ১০টা  থেকে এলাকার কিছু প্রভাবশালির সহযোগিতায় এই পশুহাট বসানো হয় এলাকার সচেতন মহল মনে করে এই ক্লান্তিলগ্নে পশুহাট টি না বসালে হতো, কারন বর্তমান সরকারের নির্দেশ মোতাবেক দেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিরলসভাবে মাঠে কাজ করে যাচ্ছে মানুষকে সচেতন করতে কিন্ত আমরা সেই নির্দেশনা উপেক্ষা করে আমাদের বিপদ ডেকে নিয়ে আসছি।

এ বিষয়ে ঝিনাইদহ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ বদরুদ্দোজা শুভ বলেন হাট বারে একটু সময় বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে তবে সামাজিক দুরত্ত বজায় রেখে জন-সমাগম এরিয়ে কেনা-বেঁচা সীমিত আকারে করতে পারে তবে কেউ সামাজিক দুরুত্ত বা মাক্স ব্যবহার না করলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে পশু হাটে জেয়ে দেখা যায় সামাজিক দুরুত্ত তো না মেনে মুখে মাক্স ব্যবহার না করে জনসমাগম করে গরু-ছাগল  ক্রয়-বিক্রয় করা হচ্ছে।

এলাকার সচেতন মহল মনে করেন ঝিনাইদহ এই লোক ডাউন দেওয়ার কতটুকু সুফল পাবে ঝিনাইদহ বাসি সেটি আমাদের জানা নাই কারন২ টার পর দোকান দোকান পাট বন্ধ রেখে পশু হাট  চলতে দিলে আমাদের ভালোর চেয়ে মন্দই বেশি হবে।

কারন পশু হাটে বিভিন্ন জায়গা থেকে আসা বেক্তিদের নিয়ে অতিরিক্ত  লোকসমাগম হয় যদি কারো করোনা আক্রান্ত হয়ে থাকে সেটিও কেউ জানতে পারবে না, এইরকম ভিন্ন লোক ডাউন ঝিনাইদহ বাসি চায় না।আমরা এলাকা বাসি প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করছি।