আবারো লকডাউনের আশংঙ্কায় নিত্য প্রয়োজনীয় সবকিছুর দাম উর্ধ্বমুর্খী !

175
আবারো লকডাউনের আশংঙ্কায় নিত্য প্রয়োজনীয় সবকিছুর দাম উর্ধ্বমুর্খী ! প্রতিকী-ছবি

সুপ্রভাত বগুড়া (ব্যবসা-বাণিজ্য): আবারো লকডাউনের আশংঙ্কায় অস্থিতীশীল হয়ে পড়েছে রাজধানীর কাঁচাবাজার। নিত্য প্রয়োজনীয় সবজি থেকে শুরু করে চাল, ডাল সবকিছুর দামই উর্ধ্বমুর্খী। এ অবস্থায় ক্রেতারা পড়েছেন বিপাকে।

করোনার কারণে একদিকে উপার্জন কমে যাওয়া, অন্যদিকে বাজারের উর্ধ্বমুখি প্রবণতা কঠিন করে তুলছে তাদের জীবন-যাপন। একটি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন পঞ্চাশ ছুঁই ছুঁই এ কর্মজীবি। সাধারণ ছুটির পুরো সময় রাজধানীতেই ছিলেন তিনি। তবে ছুটি শেষে যানবাহন চলাচল শুরুর পর জিনিসপত্রের দাম বাড়ার কোনো ব্যাখ্যা খুঁজে পাচ্ছেন না তিনি।

একদিনে করোনার কারণে বেতন কমে যাওয়া অন্যদিকে বাজারে সবকিছুর দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় অর্থনৈতিক অনিরাপত্তায় ভুগছেন তিনি। বাজার ঘুরে দেখা গেছে, প্রায় সব ধরণের সবজিই কেজি প্রতি পাঁচ থেকে দশ টাকা বেশী দরে বিক্রি হচ্ছে। বেগুন ৪০ থেকে ৫০, গাজর ৭০, টমেটো ৪০ থেকে ৫০, পেপে ৪০ ও আলু ২৮ থেকে ৩০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

কাঁচামরিচ কেজিতে ১০ থেকে ২০ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০টাকায়। আর পেঁয়াজের দাম বেড়েছে কেজিতে প্রায় ১০টাকা। এদিকে মধ্যবিত্তের পরম ভরসা ডিমের দামও বেড়েছে ডজনে ১৫ থেকে ২০ টাকা।

প্রতি ডজন ডিম বিক্রি হচ্ছে ৯৫ থেকে ১০০টাকা। আর কখনও উর্ধ্বমূখী কখনও নিুমূখী প্রবণতা দেখা যাচ্ছে মুরগীর বাজারে। এবার ধানের ফলন বাম্পার হলেও চালের বাজারে তার কোনো ছোঁয়া লাগেনি।

প্রায় সব চালের দামই কেজিতে দুই থেকে তিন টাকা বেড়েছে।  বাজার ব্যবস্থাকে সহনীয় পর্যায়ে রাখতে বাজারে কঠিন নজরদারী চালানোর দাবি জানিয়েছেন সাধারণ মানুষ।