আগামীকালের বাজেট অধিবেশনে শুধুমাত্র নেগেটিভ রিপোর্ট পাওয়া এমপিরাই যোগ দিতে পারবেন

45

সুপ্রভাত বগুড়া (জাতীয়): সাতদিন বিরতির পর আগামীকাল মঙ্গলবার আবার বসছে জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশন। চলমান অধিবেশনের বৈঠকসমূহে নেগেটিভ রিপোর্ট পাওয়া এমপিরাই যোগ দিতে পারবেন। দেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। 

সংসদ সচিবালয়ের মেডিকেল সেন্টারে আজ পর্যন্ত মোট ৯১ জন সংসদ সদস্য কোভিট-১৯ পরীক্ষা করিয়েছেন। তবে এখন পর্যন্ত নতুন করে কারো পজেটিভ রিপোর্ট পাওয়া যায়নি। সংসদের চিফ হইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী জানান, পরীক্ষায় যারা পজেটিভ হবেন, তাদের সংসদে না আসতে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

সংসদ সচিবালয়ের মেডিকেল সেন্টারে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সোমবার ২৬ জন এমপি নিজেদের করোনা টেষ্ট করিয়েছেন। এরআগে রবিবার ৪৫ জন ও শনিবার ২০ জন কোভিট-১৯ পরীক্ষা করান। এর মধ্যে ২০ জনের রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে।

আজ রাত সাড়ে আটটা অবধি অন্য কোন কারো পজেটিভ রিপোর্ট পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ নূর-ই আলম চৌধুরী বাংলাদেশ প্রতিদিনকে, করোনা নেগেটিভ নিশ্চিত হয়েই এমপিরা সংসদে যোগ দিবেন। পরিবর্তিত পরিস্থিতির কারণে এমপিদের নমুনা পরীক্ষা করার অনুরোধ করা হয়েছ।

এটা বাধ্যতামূলক নয়, তবে সকলের কাছ থেকে ইতিবাচক সাড়া পাওয়া গেছে। পরীক্ষায় যারা পজেটিভ হবেন, তাদের সংসদে না আসতে অনুরোধ জানানো হয়েছে। সে ভাবেই বাজেট আলোচনায় অংশগ্রহণকারীদের তালিকা চূড়ান্ত হয়েছে। এমপিদের রোস্টারের বিষয়ে তিনি বলেন, ৮০-৮২ জন করে তালিকা করা হয়েছে। নির্ধারিত রোস্টারভুক্ত এমপি ১৭০ জনের কম বেশি হতে পারে।

কোভিড-১৯ পরীক্ষা শুরু হয়েছে গত শনিবার থেকে। এই নমুনা পরীক্ষা চলমান থাকবে। এরমধ্যে প্রথম দিনে নমুনা দেয়া ২০ জন এমপির ফলাফল নেগেটিভ এসেছে। এখন পর্যন্ত অন্য সংসদ সদস্যদের টেস্ট রিপোর্ট পাইনি।

এদিকে গণফোরমের টিকিটে নির্বাচিত সিলেট-২ (বিশ্বনাথ-ওসমানীনগর) আসনের এমপি মোকাব্বির খাঁনের শারীরিক অবস্থার উন্নতি হওয়ায় গত রবিবার তাকে সিএমএইচ থেকে রিলিজ দেওয়া হয়েছে। তিনি বর্তমানে বাসায় আছেন। সংসদ সচিবালয়ের আইনশাখা সূত্রে জানা গেছে, চলতি অধিবেশন চলবে আর মাত্র চার কার্যদিবস।

এক সপ্তাহ বিরতির পর কাল ২৩ জুন থেকে অধিবেশন বসছে। কাল ও পরশু ২৪ জুন প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে এবং ২৯ জুন অর্থ বিল এবং ৩০ জুন বাজেট পাস হবে। আগামী চার কার্যদিবসে অংশ নেবেন এমন ১৭০ এমপির নমুনা পরীক্ষার জন্য ইতোমধ্যে চিঠি দেওয়া হয়েছে।