দেশের রেল বহরে যুক্ত হয়েছে নতুন ইঞ্জিন ও কোচ

101
দেশের রেল বহরে যুক্ত হয়েছে নতুন ইঞ্জিন ও কোচ । ছবি-সংগৃহীত

সুপ্রভাত বগুড়া (অর্থ ও বাণিজ্য): চারদলীয় জোট সরকারের আমলে রেলওয়ে খাত ছিল পুরোপুরি উপেক্ষিত। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর রেলখাতে বরাদ্দ বাড়তে থাকে। নেয়া হয় নানা উন্নয়ন প্রকল্প। এ্রই ধারাবাহিকতায় বিগত ১১ বছরে রেল বহরে যুক্ত হয়েছে বেশকিছু নতুন ইঞ্জিন ও কোচ।

দেশের প্রতিটি জেলাকে রেলওয়ে নেটওয়ার্কের আওতায় আনার লক্ষ্যে কাজ করছে বর্তমান সরকার। এই উদ্যোগের অংশ হিসেবে রেলের বহরে যুক্ত করা হচ্ছে নতুন ইঞ্জিন ও কোচ। এতে রেল ভ্রমণ আরামদায়ক হয়ে উঠছে। রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের প্রধান যন্ত্র কৌশল প্রকৌশলী ফকির মো. মহিউদ্দিন বলেন, ইন্দোনেশিয়া থেকে উন্নতমানের ২শ’টি মিটারগেজ কোচ এসেছে।

এই কোচগুলো দিয়ে আমরা ইতিমধ্যে ছয়টি ট্রেন নতুনভাবে নতুন রূপে প্রতিস্থাপন করেছি এবং যাত্রীরা আগের চেয়ে অনেক উন্নতমানের সেবা পাচ্ছে। সম্প্রতি রেলের বহরে যুক্ত হয়েছে কোরিয়া থেকে আনা ১০টি ইঞ্জিন। ইঞ্জিনগুলোর কমিশনিং হবে ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে। এই ইঞ্জিন আন্তনগর এবং দূরপাল্লার ট্রেনে ব্যবহারের পরিকল্পনা করছে রেল কর্তৃপক্ষ।

ফকির মো. মহিউদ্দিন আরও বলেন, ৬০ বছরের পুরনো এই লোকোমটিভগুলো আমাদের লোকজনের মাধ্যমে মেরামত করে চালিয়ে আসছি। ইতিমধ্যে ১০টি নতুন লোকোমটিভ কোরিয়া থেকে এসেছে। এই লোকোমটিভ গুলো অত্যন্ত গতিশীল, আধুনিক এবং মানসম্মত।

রেলের এই উন্নয়নকে স্বাগত জানিয়েছেন শ্রমিক নেতারা। বাংলাদেশ রেলওয়ে শ্রমিক লীগের মহাসচিব সিরাজুল ইসলাম বলেন, ২০-৩০ কিলোমিটার যাওয়ার পর রাস্তার উপর ইঞ্জিন দাঁড়িয়ে আছে, যাত্রীরা কষ্ট পাচ্ছেন। কিন্তু এখন রেল সে অবস্থায় নেই। জননেত্রী শেখ হাসিনা রেলকে ঢালাওভাবে সাজিয়েছেন। ব্রিটিশ আমল থেকে এখনও পর্যন্ত এই অঞ্চলের মানুষের কাছে রেল যোগাযোগের ক্ষেত্রে আস্থার প্রতীক।