দোকানে তেল নেই, তবে অভিযানে গুদামে মিললো সাড়ে ৯২ হাজার লিটার !

72
দোকানে তেল নেই, তবে অভিযানে গুদামে মিললো সাড়ে ৯২ হাজার লিটার !

রাজশাহীর বানেশ্বর বাজারে ৪টি গুদামে অভিযান চালিয়ে ৯২ হাজার ৬১৬ লিটার সয়াবিন তেল ও পামওয়েল জব্দ করেছে জেলা পুলিশ। এ ঘটনায় ৪ জনকে আটক করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলার বানেশ্বর বাজারের ৪টি গুদাম থেকে এই তেল জব্দ করা হয়।

অভিযানে উদ্ধার হওয়া ভোজ্যতেলের মধ্যে ২৪ হাজার ৬৮৪ লিটার সয়াবিন ও ৬৭ হাজার ৯৩২ লিটার পাম তেল রয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, তেল জব্দের ঘটনায় ট্রাকচালকসহ পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে। ট্রাকটি জব্দের পাশাপাশি চারটি গুদাম সিলগালা করে দেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।

অভিযান সূত্রে জানা গেছে, বানেশ্বর বাজারের সরকার অ্যান্ড সন্স থেকে ৪৮ ব্যারেল সয়াবিন ও ২৬ ব্যারেল পাম তেল; ইন্তাজ স্টোর থেকে ২২ ব্যারেল সয়াবিন তেল ও ১২০ ব্যারেল পাম তেল। মেসার্স পাল অ্যান্ড ব্রাদার্স থেকে ৩ ব্যারেল সয়াবিন ও ১০০ ব্যারেল পাম তেল এবং রিমা স্টোর থেকে ৪৮ ব্যারেল সয়াবিন ও ২৭ ব্যারেল পাম তেল উদ্ধার করা হয়।

এ ছাড়া চাঁপাইনবাবগঞ্জের পুরাতন বাজারে নিয়ে যাওয়ার জন্য একটি ট্রাকে বোঝাই করা ৬০ ব্যারেল পাম তেল উদ্ধার করা হয়েছে। প্রতিটি ব্যারেলে ২০৪ লিটার ভোজ্যতেল রয়েছে। সব মিলিয়ে মোট ১২১ ব্যারেল সয়াবিন তেল ও ৩৩৩ ব্যারেল পাম তেল উদ্ধার করা হয়েছে।

পুঠিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সোহরাওয়ার্দী জানান, বিকেল সাড়ে চারটার দিকে প্রথমে ট্রাকটি আটক করা হয়। ট্রাকের চালক তখন বলেন, তিনি বানেশ্বরের একটি ডাল মিলে এসেছিলেন। কিন্তু তাঁর ট্রাকে ৬০ ব্যারেল পাম তেল পাওয়া গেছে।

এর আগে গাজীপুরের বোর্ড বাজারে একটি গুদাম থেকে জব্দ করা হয় ২ হাজার ৫৮ লিটার সয়াবিন তেল। এসময় দোকানের মালিককে ২ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। এদিকে দুপুরে রাজশাহীর সাহেব বাজারের হুমায়ুন স্টোরে অভিযান চালিয়ে ১৩২ লিটার বোতলজাত সয়াবিন জব্দ করা হয়। পরে দোকান মালিককে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর।

এছাড়াও পাবনার ঈশ্বরদীতে ১৮ হাজার লিটার ভোজ্য তেল উদ্ধার এবং মজুতকারীকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া, বরিশালের বাজারে এখনো স্বাভাবিক হয়নি সয়াবিন তেলের সরবরাহ।
দোকানিদের দাবি, তারা চাহিদা মতো তেল পাচ্ছেন না ডিলারদের কাছ থেকে।