নিজেকে সুস্থ্য রাখতে রাগ নিয়ন্ত্রণ করা জরুরি

58
নিজেকে সুস্থ্য রাখতে রাগ নিয়ন্ত্রণ করা জরুরি। প্রতিকী-ছবি

সুপ্রভাত বগুড়া (জীবন-জীবীকা): মানুষের স্বাভাবিক অনুভূতিগুলোর একটি হলো রেগে যাওয়া, যা কম-বেশি প্রতিটি মানুষেরই থাকে। তবে এর প্রকাশ মানুষ-ভেদে ভিন্ন হয়ে থাকে। অতিরিক্ত রাগ মোটেও ভালো নয়।

এর ফলে নিজের কিংবা অন্যের জন্য ক্ষতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে। তাই নিজেকে সুস্থ্য ও স্বাভাবিক রাখতে রাগ নিয়ন্ত্রণ করা খুবই জরুরি। রাগ নিয়ন্ত্রণে বিশেষজ্ঞরা নানা উপায় বলেছেন।

জেনে নিন রাগ নিয়ন্ত্রণের কিছু উপায় :

১. হঠাৎ করে রাগের মাথায় কোনো কথা বা কাজ করে বসবেন না, সময় নিন, প্রয়োজন হলে সেই মানুষটার সঙ্গে কিছুক্ষণ কথা বন্ধ রাখুন অথবা রাগের কারণটি থেকে নিজের মনকে অন্যদিকে সরিয়ে নিন।

২. মনকে যতটা সম্ভব শান্ত রাখার চেষ্টা করুন। মস্তিষ্ককে অন্যদিকে অন্যকাজে ব্যস্ত রাখুন। এটা রাগ কমাতে সাহায্যে করে।

৩. আপনি যখন শান্ত হয়ে যাবেন, আপনার রাগের কারণগুলো তার সামনে তুলে ধরুন, ততক্ষণে অপরজনের মাথাও ঠাণ্ডা হয়ে যাবে, তিনিও ভালোভাবে আপনার কথা বুঝতে পারবেন।

৫. আপনি যখন রেগেযা ন স্বাভাবিকভাবেই আপনার মধ্যে নমনীয়তা কাজ করে না, তাই রেগে থাকার সময়ে কোনো কথা না বলাই ভালো।

৬. যেকোনো সমস্যারই সমাধান আছে। একটু ঠাণ্ডা মাথায় চিন্তা করলেই সেটা বের করা যায়। সেটাই চেষ্টা করুন।

৭. নিজেকে নিয়ে বেশি হিসাব করতে গেলে রাগ আরও বাড়বে, তাই তাৎক্ষণিক ব্যাপারটা মেনে নিলে সমস্যা অনেকটা কমে যায়।

৮. রাগ বা টেনশন কমানোর জন্য খানিকটা হাসি ঠাট্টা করা যেতে পারে, তাতে মনটা হালকা হয়ে যায়।

৯. সবচেয়ে ভালো উপায় হলো নিয়মিত মেডিটেশন। এতে শরীরের অন্য উপকারের সঙ্গে সঙ্গে রাগ নিয়ন্ত্রণও হয়।

১০. রাগ প্রশমিত হয়ে গেলে নির্দিষ্ট ব্যক্তির প্রতি একধরনের সহানুভূতি হয়। সেটি ধরে রাখার চেষ্টা করুন।

১১. সহকর্মীসহ সবার প্রতি সহানুভূতিশীল হোন। ভাব বিনিময়ে স্পষ্টতা অবলম্বন করুন।

১২. নিজের রাগের মাত্রা সম্পর্কে সতর্ক থাকুন। রাগান্বিত অবস্থায় আপনাকে কেমন দেখাচ্ছে, তা জানতে সহকর্মী বা আশপাশের কাউকে জিজ্ঞেস করুন।