প্রচণ্ড এই গরমে সুস্থ্য থাকতে খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন জরুরী

85
প্রচণ্ড এই গরমে সুস্থ্য থাকতে খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন জরুরী

প্রচণ্ড এই গরমের সময়টাতে খাদ্যাভ্যাসে অনেকটা পরিবর্তন আনতে হয়। নতুবা তাপমাত্রা পরিবর্তনের সাথে সাথে খুব সাধারণ কিছু স্বাস্থ্য-সমস্যা দেখা দেয়। এছাড়া করোনাভাইরাস সংক্রমিত হবার সুযোগ তো রয়েছেই। তাই গরমের মধ্যে অসুস্থতা রোধে কিছু বিষয় মেনে চলা প্রয়োজন। চলুন জেনে নেয়া যাক-

◾পর্যাপ্ত পানি পান 
হঠাৎ করে তাপমাত্রা বৃদ্ধির সাথে সাথে পর্যাপ্ত পানির অভাবে এ সময়ে পানি শূন্যতা দেখা দিতে পারে। এছাড়া শরীর থেকে লবণ এবং পানি বেরিয়ে গেলে ইলেকট্রোলাইট ইমব্যালান্স দেখা দেয়। তাই শরীরে আদ্রতা ধরে রেখে সুস্থ থাকতে পর্যাপ্ত পানি পান করা চাই।

◾মৌসুমি শাক-সবজি ও ফলমূল গ্রহণ
গরমের এই সময়ে প্রত্যেককে নিজস্ব দৈনন্দিন খাবারের তালিকায় রাখতে হবে মৌসুমি শাক-সবজি এবং ফলমূল। সবজির ক্ষেত্রে ফাইবার সমৃদ্ধ সবজি নির্বাচন করতে হবে, যার মাধ্যমে প্রয়োজনীয় ভিটামিনের পাশাপাশি খাদ্য আঁশও পাওয়া সম্ভব। গ্রীষ্মের মৌসুমে পাওয়া যায় হরেক রকম রসালো ফল, যেগুলো গ্রহণের মাধ্যমে একই সাথে পানি শূন্যতা রোধ করা সম্ভব।

◾হজম সহায়ক খাবার গ্রহণ
গরমে সুস্থ থাকতে খাবার রান্না করার পদ্ধতির বিষয়েও সতর্ক থাকতে হবে। সহজপাচ্য খাবার গ্রহণ করতে হবে। কারণ অতিরিক্ত তেল-মশলার খাবার হজম করার জন্য আমাদের অতিরিক্ত শক্তির দরকার হয়, যার ফলে শরীরে অতিরিক্ত তাপমাত্রার সৃষ্টি হয়। ফলে অস্তিত্বকর অবস্থার সৃষ্টি হয়ে অসুস্থ বোধ হয়। কম তেল-মশলায় রান্না করা স্বাস্থ্যকর খাবারের পাশাপাশি ডায়েটে রাখতে পারেন টকদই, যা কিনা আপনার হজম প্রক্রিয়া সহজ করবে কয়েকগুণ।

◾অতিরিক্ত শারীরিক পরিশ্রম করা থেকে বিরত থাকুন
কোনো কিছুই প্রয়োজনের অতিরিক্ত স্বাস্থ্যের জন্য ভালো নয়। গরমে অনেকেই অতিরিক্ত ব্যয়াম করে থাকেন। যেটা স্বাস্থ্যের জন্য ঠিক নয়। গরমে শরীরের তাপমাত্রা বেশী থাকে, এই অবস্থায় অতিরিক্ত ওয়ার্ক আউট করার ফলে তাপমাত্রা আরও বেড়ে যায়। যা সুস্থ থাকার চেয়ে অসুস্থতাই ডেকে নিয়ে আসতে পারে। এছাড়া শরীর থেকে প্রয়োজনীয় লবণ বের হয়ে যাওয়ার ফলে ইলেকট্রোলাইট ইমব্যালান্সও দেখা দিতে পারে। তাই সুস্থ থাকতে সীমিত পরিসরে শারীরিক পরিশ্রম করুন।

◾প্রখর সূর্যালোক এড়িয়ে চলুন
তীব্র সূর্যালোকে অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়েন। হিট-স্ট্রোকের মতো ঘটনাও ঘটতে দেখা যায়। অতিরিক্ত গরমে খুব প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের না হওয়াই উত্তম। যদিও বিভিন্ন কারণে আমাদের বের হতে হয়, সেক্ষেত্রে রোদ থেকে শরীরকে বাঁচাতে ছাতা ব্যবহার করুন।