বই কেনার দিন

8
বই কেনার দিন

মাওলা ব্রাদার্সের প্যাভিলিয়নের চারপাশে ঘুরে ধীরেসুস্থে বই দেখছিলেন ব্যাংকার আসিফ আহমেদ। কথা বলে জানা গেল, শুক্রবারও বইমেলায় এসেছিলেন তিনি। কিন্তু ভিড়ের চাপে উল্টেপাল্টে বই দেখার ফুরসত পাননি। শনিবার তাই আবারও পছন্দের বইয়ের খোঁজে এসেছেন।

শুক্রবারের প্রচণ্ড ভিড়ের কারণে মেলা প্রাঙ্গণে ঘোরাফেরা বা বই কেনা কোনোটাতেই স্বস্তি ছিল না। গতকাল শনিবার যথেষ্ট জনসমাগম থাকলেও ততটা ঘন ভিড় ছিল না। আর এদিন মেলা প্রাঙ্গণ থেকে যারা বের হচ্ছিল তাদের একটা বড় অংশের হাতেই ছিল বইয়ের ব্যাগ।
মাওলা ব্রাদার্সের বিক্রয়কর্মী মো. সাইফুল্লাহ জানান, গতকাল তাঁরা তরুণদের চেয়ে মধ্যবয়সী ক্রেতা পেয়েছেন বেশি।

Pop Ads

সন্ধ্যায় অন্যপ্রকাশের প্যাভিলিয়নের চারপাশজুড়ে ছিল পাঠকদের ভিড়। সেখানে পাঠকদের আগ্রহের কেন্দ্রে রয়েছেন হুমায়ূন আহমেদ। চলে যাওয়ার এক যুগ হতে চললেও এখনো বইমেলার অন্যতম বড় আকর্ষণ তাঁর বই।

অন্যদিকে এবার হুমায়ূন আহমেদকে নিয়েই অন্যপ্রকাশে এসেছে আরেক জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলনের স্মৃতিচারণামূলক নতুন বই ‘কেমন ছিলেন হুমায়ূন আহমেদ’। দেশের পাঠকপ্রিয় এই দুই লেখকের ছিল দীর্ঘদিনের পরিচয় ও আন্তরিক সম্পর্ক। পরস্পরের জীবনের বহু ঘটনার সাক্ষী তাঁরা। এই সবই উঠে এসেছে ইমদাদুল হক মিলনের বইটিতে।

গতকাল মেলার সতেরতম দিনে বাংলা একাডেমির তথ্যকেন্দ্রে নতুন বই জমা পড়েছে ১৭১টি।

এ নিয়ে এ পর্যন্ত নতুন বই এসেছে এক হাজার ৭৯৫টি। এর মধ্যে ঐতিহ্য প্রকাশ করেছে আফসান চৌধুরী সম্পাদিত ‘১৯৭১ : আন্তর্জাতিক পরিসর’, প্রথমা এনেছে আনিসুল হক সম্পাদিত ‘মুক্তিযুদ্ধে শহীদ বুদ্ধিজীবী—স্মৃতি জীবন যুদ্ধ’, মাওলা ব্রাদার্স প্রকাশ করেছে মামুন হুসাইনের উপন্যাসিকা ‘জলছাপের চিত্রশালা’, অন্যপ্রকাশ বের করেছে শাহনাজ মুন্নীর উপন্যাস ‘দুঃখ কারাগার’।
বই-সংলাপ ও রিকশাচিত্র মঞ্চের উদ্বোধন

বইমেলার আয়োজনের অংশ হিসেবে গতকাল সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ‘বই-সংলাপ ও রিকশাচিত্র প্রদর্শন মঞ্চ’-এর উদ্বোধন করেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক মুহম্মদ নূরুল হুদা। আজ রবিবার থেকে এখানে প্রতিদিন রিকশাচিত্র প্রদর্শনের পাশাপাশি মেলায় প্রকাশিত নির্বাচিত বই নিয়ে আলোচনা হবে।

মেলামঞ্চের আয়োজন

গতকাল সকালে বইমেলার মূলমঞ্চে শিশু-কিশোর সংগীত প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্ব অনুষ্ঠিত হয়। বিকেলে রামেন্দু মজুমদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয় শহীদ সাবের ও পান্না কায়সার স্মরণে আলোচনা। প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন যথাক্রমে মনির ইউসুফ এবং মামুন সিদ্দিকী। আলোচনায় অংশ নেন গিয়াস উদ্দিন, রতন সিদ্দিকী এবং শমী কায়সার।

‘শহীদ সাবের : আধুনিকতার বেদনা ও মহিম’ শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করে মনির ইউসুফ বলেন, ‘শহীদ সাবের নানা প্রতিবন্ধকতা সত্ত্বেও মানবমুক্তির পথ, মার্ক্সীয় দর্শন, প্রগতি ও সৌন্দর্যচেতনা আঁকড়ে ধরে ছিলেন।’

‘পান্না কায়সার : দীপান্বিতার অবিরাম পদযাত্রা শীর্ষক’ প্রবন্ধে মামুন সিদ্দিকী বলেন, ‘পান্না কায়সার ছিলেন বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক আন্দোলনের অন্যতম বাতিঘর। মুক্তিযুদ্ধের ভাবাদর্শ ও উদারনৈতিক চিন্তাধারার মধ্য দিয়ে তিনি জীবনব্যাপী সংগ্রাম অব্যাহত রেখেছিলেন।’

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে কবিতা পাঠ করেন কবি মিনার মনসুর, হাফিজ রশিদ খান ও আয়শা ঝর্না। ছিল আবিদা রহমান সেতুর পরিচালনায় সাংস্কৃতিক সংগঠন ‘বহ্নিশিখা’ এবং মঙ্গল চন্দ্র মণ্ডলের পরিচালনায় সাংস্কৃতিক সংগঠন বুলবুল ললিতকলা একাডেমির পরিবেশনা।

আজ বইমেলার মূলমঞ্চে কামাল চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হবে ‘স্মরণ : জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান’ শীর্ষক আলোচনা। এতে প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন স্বরোচিষ সরকার। আলোচনায় অংশ নেবেন লুভা নাহিদ চৌধুরী ও এম আবদুল আলীম।