বগুড়ার ৫৯ পুলিশ সদস্য প্লাজমা দানে এখন রাজধানীতে

40
বগুড়ার ৫৯ পুলিশ সদস্য প্লাজমা দানে এখন রাজধানীতে। ছবি-খাজা রতন
স্টাফ রিপোর্টার: করোনা জয়ী বগুড়া জেলা পুলিশের সদস্যদের মধ্যে প্রথম ধাপে রোববার ১৬’ই আগস্ট ৪০ এবং আজ ১৯ জন প্লাজমা দান করতে রাজধানীর রাজারবাগ সেন্ট্রাল পুলিশ হাসপাতালে গেলেন। জেলা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত কয়েকদিন আগে রাজারবাগ সেন্ট্রাল পুলিশ হাসপাতাল থেকে একটি মেডিকেল টিম বগুড়ায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ১১৭ জন পুলিশ সদস্যদের শরীরে অ্যান্টিবডি পরীক্ষা করেন। এর মধ্যে ৫৯ জন পুলিশ সদস্যের শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে বলে জানিয়েছেন মেডিক্যাল টিম।
পরে তাদের প্লাজমা দেয়ার জন্য নির্বাচিত করা হয়। তাদের মধ্যে ৪০ জন গতকাল রোববার ঢাকায় গেছেন প্লাজমা দান করতে এবং বাকি ১৯ জন রওনা দিয়েছেন। গতকালের ৪০ জন পুলিশ সদস্যের মধ্যে পুলিশ পরিদর্শক রয়েছেন ১ জন, উপপরিদর্শক ১২ জন, সহকারি উপপরিদর্শক ৮ জন ও ১৯ জন কনস্টেবল রয়েছেন।
প্লাজমা দান করার সুযোগ পেয়ে পুলিশ সদস্যরা আনন্দিত। তারা বলছেন, পুলিশ সব সময়ই মানুষের কল্যাণে কাজ করে আসছে, এর অংশ হিসেবে তারা প্লাজমা দান করতে যাচ্ছেন। করোনায় আক্রান্ত হলে কী ধরনের কষ্ট তা বুঝেছেন প্লাজমা দানকারী পুলিশ সদস্যরা। সেই কষ্ট থেকেই প্লাজমা দেওয়ার বিষয়ে নিজের মধ্যে একটি বোধ কাজ করে।
মহামারী করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় প্লাজমা দেয়ার সুয়োগ পেয়ে আনন্দিত এসব পুলিশ সদস্যবৃন্দ। তারা জানান, তাদের প্লাজমা থেকে আরেকজন করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি সুস্থ হবেন, এটাই সবচেয়ে বড় কথা। তারা পুলিশ জনগণের সেবায় এই কাজ করছেন। রোববার বগুড়া থেকে প্লাজমা দিতে যাওয়া উপলক্ষে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে জেলা পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূঞা এ সময় সংক্ষিপ্ত প্রেস ব্রিফিং করেন। জেলার পুলিশ প্রধান জানান, মেডিকেল টিমের পরীক্ষায় ৫৯ জন পুলিশ সদস্য নির্বাচিত হয়েছে। এদের মধ্যে ৪০ জন প্রথম ধাপে ঢাকায় যাচ্ছেন। সোমবার যাবেন আরও ১৯ জন।
করোনা মহামারীতে প্লাজমা দান করে পুলিশ দেশের এই ক্রান্তিকালে যে অবদান রাখছে তা বিশেষভাবে লক্ষ করার মতো। জেলা পুলিশ জানায়, এখন পর্যন্ত বগুড়ায় মোট ১৪৯ জন পুলিশ করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। এদের মধ্যে ১৪২ জন সুস্থ হয়েছে এবং মৃত্যু বরণ করেছে ১ জন। এসময় জেলা পুলিশের উর্দ্ধতন কর্মকর্রতাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।