বগুড়ায় আগে ভালবাসার সন্তানের জন্ম, পরে বিয়ে !!

389
বগুড়ায় আগে ভালবাসার সন্তানের জন্ম, পরে বিয়ে !! প্রতিকী-ছবি

সুপ্রভাত বগুড়া (আবদুল ওহাব বগুড়া প্রতিনিধি): বিদেশের মাটিতে নয়, দেশের মাটিতেই ভালবাাসার এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে এক প্রেমিক প্রেমিকা। হার মানিয়েছে লাইলী-মজনু-শিরি-ফরহাদ, রাধা-কৃষ্ণ, চন্ডিদাস-রজকিনিকে।

তারা অবাধ ভালবাসার দৃশ্যকে স্মৃতিময় করে ধরে রাাখতে দুজনে বিয়ের আগেই জন্ম দিয়েছেন সন্তান।

তবে শেষ পর্যন্ত এই বিয়ে ও সন্তানের স্বীকৃতি পেতে ওই নারীকে কাঠ খড়ি পুড়াতে হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে বগুড়া ধুনট উপজেলার নিমগাছি বেড়েরবাড়ি গ্রামে।

বুধবার ১৭ জুন স্থানীয় সুত্রে জানাযায়, নিমগাছি বেড়েরবাড়ি গ্রামের বন্যা (১৮)ও মেহেদীর (২২) (ছদ্মনাম) প্রেমের সম্পর্ক ছিল। দীর্ঘদিনের ভালবাসার গভীরতায় দুজনে দিনে দিনে শারিরীক সম্পর্কে জড়িয়ে পরে।

রঙ্গীন স্বপ্ন আর বিয়ের প্রত্যাশায় দুজনের মেলামেশা হয়ে উঠে উত্তাল সাগরের ঢেউয়ের মত। লোকচক্ষুর অন্তরালে কখনও কখনও বন্যাকে বাড়িতে একা পেয়ে অবাধ মিলনে গর্ভবতী হয়ে পড়ে বন্যা।

কিন্তু প্রেম সাগরে হাবুডুবু খেয়ে মেয়েটি অন্তঃসত্তা হওয়ার পর বিয়ের চাপ দিলে নিরুদ্দেশ হয় মেহেদী। এরই মধ্যে কন্যা সন্তান জন্ম দেন বন্যা। নিরুপায় হয়ে সন্তান ও স্ত্রীর স্বীকৃতির দাবিতে আইনের আশ্রয় নেন তিনি।

তবে মামলায় বিয়ের প্রলোভনে তাকে ধর্ষন করা হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে। আর আইনি জটিলতার ভয়ে ক’দিন পুর্বে স্ত্রী-সন্তানকে স্বীকৃতি দিতে বাধ্য হন মেহেদী।

নিমগাছি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আজাহার আলী বলেন, থানায় মামলা দায়েরের পর এক লাখ এক টাকা দেন মোহরানায় রেজিস্ট্রি করে বন্যা ও মেহেদী বিয়ে সম্পন্ন করেছে।

এরপর সন্তান নিয়ে নবদম্পতি সুখের সংসার গড়েছেন। এদিকে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও ধুনট থানার এসআই প্রদীপ কুমার বর্মন বলেন, এই মামলার বিষয়ে উর্ধ্বতন কর্মকর্তার সাথে আলোচনা করে আদালত প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।