বগুড়ায় যুব কমিটি নেতা সিজারের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ অত:পর অভিযোগকারীর বিবৃতি

380

সুপ্রভাত বগুড়া (আবু সাঈদ হেলাল): বগুড়ায় জাতীয় শ্রমিকলীগ যুব-কমিটির প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি রাকিব উদ্দিন প্রাং সিজার অত্যন্ত অল্প সময়ে রাজনৈতিক পরিচিতি ও শ্রমিক নেতা হিসাবে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন।

কিন্তু, তার এই জনপ্রিয় হয়ে ওঠা অনেকের সামনে চক্ষুসূল হয়ে দেখা দিয়েছে। যার দরুন অনেক সময়ই বিভিন্ন মহল তার এই সুনাম ও রাজনৈতিক ইমেজ নষ্ট করার জন্য পায়তারা করছেন বলে তরুণ এই শ্রমিক নেতা অভিমত ও দু:খ প্রকাশ করেছেন।

গত বৃহস্পতিবার এমনই এক ঘৃণ্য ঘটনার অবতারণা হয়। অন্য একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনার সাথে পশ্চিম বগুড়ার উদিয়মান শ্রমিক নেতা জাতীয় শ্রমিকলীগ-যুব কমিটির প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি রাকিব উদ্দিন প্রাং সিজার ও তার ছোট ভাই রায়হান উদ্দিন প্রাং পালাশের নাম জড়িয়ে থানায় মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করা হয়।

পরের দিন বেশ কয়েকটি স্থানীয় পত্রিকায় ঘটনাটি অন্যখাতে প্রাহিত করার ঘৃণ্য উদ্দেশ্যে অতিরঞ্জিত করে খবরও প্রকাশিত হয়। এই ঘটনার তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে এই শ্রমিক নেতা বাদী ও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের নিয়ে বৈঠকের মাধ্যমে সমাধানের ব্যবস্থা করে সততা, নিষ্ঠা ও উদারতার প্রমাণ দিয়েছেন।

এবং প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বিষয়টির নিস্পত্তি হয়েছে। যেখানে বাদি উপস্থিত থেকে ঘটনাটির ব্যাপারে ভুল স্বীকার করে বিবৃতি দিয়েছেন। নিম্নে তার বিবৃতি উল্ল্যেখ করা হলো :

অভিযোগকারীর বিবৃতি :

আমি মো: হারুনুর রশিদ, পিতা-মো: রুহুল আমিন, গ্রাম-পুরান বগুড়া, থানা ও জেলা বগুড়া সদর বগুড়া।

আমি এই মর্মে বিবৃতি প্রদান করছি যে, গত-২৮-০৫-২০২০ইং তারিখে আমার ভাই মো: সুজনের সাথে শহরের তিনমাথা রেলগেট এলাকায় একটি অনাকাংখিত ঘটনা ঘটে।

যেখানে ভুলক্রমে জাতীয় শ্রমিকলীগ যুব-কমিটি বগুড়া জেলা শাখার সভাপতি রাকিব উদ্দিন প্রাং সিজার ও তার আপন ছোট ভাই রায়হান উদ্দিন প্রাং পলাশের নামে আমি সদর থানায় অভিযোগ দায়ের করি।

কিন্তু পরে আমি জানতে পারি যে তারা উক্ত ঘটনার সাথে জড়িত ছিলেন না। এটা শুধুমাত্র ভুল বুঝাবুঝির জন্য ঘটেছে বলে আমি মনে করে।

তাই বিষয়টি সবার অবগতির জন্য আমি এই বিবৃতি প্রদান করলাম।

বিবৃতিদাতা:
মো: হারুনুর রশিদ, পিতা-রুহুল আমিন
গ্রাম-পুরান বগুড়া, বগুড়া সদর, বগুড়া।