বগুড়ায় লকডাউনের সুযোগে মাদরাসা কক্ষে পতিতা নিয়ে রঙ্গলীলা !!

159

সুপ্রভাত বগুড়া (আবদুল ওহাব, শাজাহানপুর, বগুড়া প্রতিনিধি): বগুড়ার শাজাহানপুরে ইসলামপুর (গোবিন্দপুর) দাখিল মাদ্রাসা কক্ষে পতিতা নিয়ে অসামাজিক কার্যকলাপে রঙ্গলীলা করার অভিযোগ উঠেছে ওই মাদ্রাসার অফিস সহায়ক (পিয়ন) ও ম্যানেজিং কমিটির এক অভিভাবক সদস্যের বিরুদ্ধে। আলোচিত এ ঘটনার বিচারের দাবিতে বিক্ষুদ্ধ হয়ে উঠেছে স্থানীয় জনগণ।

আজ রবিবার ৩১ মে স্থানীয়রা জানান, গত মঙ্গলবার মধ্য রাতে উপজেলার আমরুল ইউনিয়নের বড়নগর পূর্বপাড়া ইসলামপুর (গোবিন্দপুর) দাখিল মাদ্রাসা’র দশম শ্রেণীর কক্ষে একটি পতিতা নারীর সাথে রঙ্গলীলায় ফূর্তি করার সময় উঠতি বয়সের স্থানীয় কিছু ছেলেদের হাতে ধরা পড়ে গোবিন্দপুর পশ্চিমপাড়া গ্রামের মৃত আবুলের পুত্র দুই ছেলে আব্দুর রাজ্জাক মন্টু (৪২) ও একই এলাকার মৃত মছির উদ্দিনের ছেলে আব্দুল বাকি (৪০)।

জানাযায়, আবদুর রাজ্জাক ও মন্টু মিয়া দুজনেই ওই মাদ্রাসাতে অফিস সহায়ক পদে চাকরি করেন। এই সুবাদে রাতে মাদ্রাসা পাহারাদারের দায়িত্ব পালন করেন। আর আব্দুল বাকি মাদ্রাসা ম্যানেজিং কমিটির অভিভাবক সদস্য।

ঘটনার সময় পাড়ার ছেলেরা ওই নারীকে জিজ্ঞাসাবাদ করে জানতে পারে, সে নারী পেশায় পতিতা। তাঁরা দু’জন তাকে যৌন মেলামেশার জন্য শহর থেকে ভাড়া করে এনেছেন।

পরে আব্দুর রাজ্জাক মন্টু ও আব্দুল বাকি নিজেদের দোষ স্বীকার করে ঐসব ছেলেদের ম্যানেজ করে কৌশলে পতিতা নারীকে নিয়ে মাদ্রাসা কক্ষ থেকে সটকে পড়ে।

এ ঘটনাটি জানাজানি হলে বিক্ষুদ্ধ হয়ে উঠে এলাকাবাসী। তাঁরা ন্যাক্কারজনক এ ঘটনার মূল হোতা অফিস সহায়ক আব্দুর রাজ্জাক মন্টু ও অভিভাবক সদস্য আব্দুল বাকি’র দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দাবি করে মাদ্রাসা ম্যানেজিং কমিটির কাছে বিচারের দাবী জানান।

কিন্তু ঘটনার ৫ দিন অতিবাহিত হলেও মাদ্রাসা ম্যানেজিং কমিটি কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় বিক্ষুদ্ধ হয়ে উঠেছে এলাকাবাসী।

এবিষয়ে মাদ্রাসাটির সুপার আব্দুল খালেক বলেন, আগামী সোমবার ম্যানেজিং কমিটির মিটিং ডাকা হয়েছে । মিটিংয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ও তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে ।

এ মাদ্রাসা ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আসাফুদৌলা শামিম বলেন, প্রাথমিকভাবে ঘটনার সতত্যা পাওয়া গেছে । তবে সোমবারের মিটিংয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আইনগত প্রক্রিয়ায় দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে ।