বঙ্গবন্ধুই বাংলাদেশের একমাত্র নেতা যিনি দলকে সংগঠিত করতে মন্ত্রীত্ব ত্যাগ করেছিলেন : প্রধানমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধুই বাংলাদেশের একমাত্র নেতা যিনি দলকে সংগঠিত করতে মন্ত্রীত্ব ত্যাগ করেছিলেন : প্রধানমন্ত্রী

সুপ্রভাত বগুড়া (জাতীয়): স্বাধীনতাকে যারা ব্যর্থ করতে চেয়েছিল, তারাই আজ ব্যর্থ বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে রোববার আওয়ামী লীগের আলোচনা সভায় ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে তিনি এ কথা বলেন। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে যুক্ত হয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত ওই সভায় বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী তুলে ধরেন শোষিত বঞ্চিত মানুষের অধিকার আদায়ে জাতির পিতার আজীবন সংগ্রাম ও দীর্ঘ কারাজীবনের কথা। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুই বাংলাদেশের একমাত্র নেতা যিনি দলকে সংগঠিত করতে মন্ত্রীত্ব ত্যাগ করেছিলেন। তিনি বলেন, আজকে বাংলাদেশ স্বাধীন দেশ হিসেবে সারাবিশ্বে যে মর্যাদা পেয়েছে, এই মর্যাদা ধরে রেখে আমরা বাংলাদেশকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাব।

Pop Ads

শেখ হাসিনা বলেন, জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস এগুলোর হাত থেকে দেশকে মুক্ত রেখে ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত, অসাম্প্রদায়িক চেতনায় উন্নত সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ আমরা গড়ে তুলব। জাতির পিতার এই প্রত্যাবর্তন দিবসে এটাই আমাদের প্রতিজ্ঞা যে এই জাতি বিশ্বে মাথা উঁচু করে চলবে। তিনি বলেন, জাতির পিতা এই জাতিকে ভালোবেসেছেন।

আমাদের একটাই চিন্তা যে জাতির জন্য আমাদের মহান নেতা জীবন দিয়ে গেছেন সেই জাতির কল্যাণ করা, তাদের জীবন সুন্দর করা। এটাই আমাদের লক্ষ্য। আর সেই লক্ষ্য নিয়েই আমি কিন্তু কাজ করে যাচ্ছি। বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ ও ১০ই জানুয়ারির ভাষণ থেকে রাজনীতিবিদ ও নতুন প্রজন্মকে অনুপ্রেরণা নেয়ার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

দেশের উন্নয়নে সরকারের নেয়া ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা তুলে ধরে তিনি বলেন, ২১০০ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশের উন্নয়ন কীভাবে হবে, সেই পরিকল্পনা ডেল্টা প্ল্যান করে দিয়েছি। প্রেক্ষিত পরিকল্পনায় ২০৪১ সালে বাংলাদেশ কেমন হবে সেটা দিয়েছি। তিনি আরো বলেন, ২০৭১ সালে আমাদের স্বাধীনতার শতবর্ষ উদযাপন হবে। আমাদের আগামী প্রজন্ম কীভাবে তা উদযাপন করবে, সেই কথা চিন্তা করেই আমরা কিন্তু পরিকল্পনা হাতে নিয়েছি। সেগুলো আমাদের বাস্তবায়ন করতে হবে। দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে।

মার্চ মাসে করোনার আরো একটি আঘাত আসতে পারে আশঙ্কা জানিয়ে সবাইকে সতর্ক থাকার পরামর্শ দেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি জানান, করোনার ভ্যাকসিন পেতে সরকার আন্তরিক এবং শিগগিরই তা হাতে আসবে। এই সভায় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয় প্রান্তে উপস্থিত ছিলেন দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী,

আব্দুর রাজ্জাক,আবদুল মতিন খসরু, সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, হাছান মাহমুদ, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বিএম মোজাম্মেল হক.এস এম কামাল হোসেন, দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া।