ভাত,কাপড় -টাকা-পয়সা কিছু চাইনা; একটি ধোঁকা দিয়ে নেয়া,ভোটের মূল্যায়ন চাই-রিপন সরকার

68
ভাত,কাপড় -টাকা-পয়সা কিছু চাইনা; একটি ধোঁকা দিয়ে নেয়া,ভোটের মূল্যায়ন চাই-রিপন সরকার। ছবি-প্রতিবেদক

সুপ্রভাত বগুড়া (স্বাধীন মতামত): বগুড়া জেলা কাহালু উপজেলার মালঞ্চা ইউনিয়নের সাতরুখা গ্রামের বাসিন্দা সমাজ সেবক নরপন সরকার অত্যন্ত অল্প সময়ে তার সমাজ সেবামূলক কর্মকান্ড দিয়ে সাধারণ মানুষের কাছে ব্যপক পরিচিতি ও জনপ্রিয়তা অ।র্জন করেছেন।

অত্র এলাকার দীর্ঘদিনের ইউপি সদস্য গত কয়েকদিন পূর্বে প্রয়াত শ্রী হীরেন চন্দ্র সরকারের বড় ছেলে তিনি। তার বাবাও ছিলেন একজন সাধারণ মানুষের প্রিয় মুখ। সাধারণ মানুষের দু:খ দুর্দশা আর সমস্যা লাঘব করাই যেন তার নেশা ছিলো। তাই এলাকার মানুষ সব সময়ই তাকে বিপুল ভোটে নির্বাচিত করতেন।

বাবার মত রিপন সরকারও এলাকার মানুষের সমস্যা সমাধানে সর্বদা তৃণমূল পর্যায়ে কাজ করে চলেছেন। জীবীকার প্রয়োজনে শহরে থাকলেও বেশির ভাগ সময় গ্রামের বিভিন্ন এলাকার উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ড নিয়েই ব্যস্থ্য থাকতে দেখা যায় তাকে।

এবার তিনি তুলে ধরেছেন কাহালুৃ উপজেলার ৯নং মালঞ্চা ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের বড়পুকুরিয়া গ্রামের রাস্তা ঘাটের বেহাল দশার চিত্র। তিনি বলেন,”ভাত,কাপড় -টাকা-পয়সা কিছু চাইনা। একটি ধোঁকা দিয়ে নেয়া,ভোটের মূল্যায়ন চাই” আসলে ভোটের সময় অনেক চেয়ারম্যান মেম্বারদের বড় বড় কথা বলে ভোট নিতে দেখলেও পরবর্তীতে সাধারণ মানুষের কথা তাদের মনে থাকেনা।

এমন কথার প্রতি উত্তরেই তিনি এমন ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এবং কাহালু উপজেলা প্রশাসনের সু-দৃষ্টি ও হন্তক্ষেপে উল্লেখিত এলাকার রাস্তা ঘাটের বেহাল অবস্থা সংস্কারের মাধ্যমে অত্র এলাকার সাধারণ মানুষের জীবন যাত্রাকে সহজ করার জন্য জোড় দাবি জানিয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, ‘রাস্তা বা পরিবেশ বাদ্ধব প্রশাসন বা জনপ্রতিনিধি কথা দেয়া কথার মূল্যায়ন চাই’। আসলে তার দাবি, অনেক সময় অনেকেই জন কল্যানমূলক কাজের প্রতিশ্রুতি দিয়েও তা রাখেন না। কিন্তু, এখন সময় এসেছে সমাজকে বদলে দেবার পূর্বের দেয়া কথার মূল্যায়ন হলেই সাধারণ মানুষ ফিরে পাবে তাদের স্বাভাবিক জীবন যাপনের আশ্বাস।

বর্তমানে একটু বৃষ্টি হলেই হাটু পর্যন্ত কাদা আর পানিতে রাস্তা যেন আর রাস্তা নয় নর্দমাতে পরিনত হয়েছে। তাই বড়পুকুরিয়া গ্রামের এই জীর্ণ রাস্তা গুলির সংস্কার করার  জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষ, উপজেলা প্রশাসন, জনপ্রতিনিিধ এবং সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কর্তা ব্যক্তিদের আশু সু-দৃষ্টি ও হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। তরুণ এই সমাজ সেবক রিপন সরকার।