মাটিডালি-বনানী বাইপাস বিশ্বরোডে গরুরহাটে সড়ক দুর্ঘটনায় ১১জন আহত !

44
বগুড়ার সাবগ্রাম-বনানী গরুর হাটে প্রতি গরুতে ৯’শ টাকা নিলেও বিক্রয় রশীদে কোন টাকা উল্লেখ নেই !!

সুপ্রভাত বগুড়া (রায়হানুল ইসলাম): বগুড়া পৌরসভার মধ্যে আইন অমান্য করে জেলা প্রশাসন ও পৌরসভাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে শুধু ক্ষান্ত নয় সাবগ্রাম হাট ও বাজার ইজারাদার। ইজারাদার ইমন হোসেন পশুক্রয়-বিক্রয়ের খাজনা রশীদে সব ঠিক-ঠাক লিখলেও অসৎ উদ্দেশ্যে ইচ্ছে মতো ক্রেতার কাছ থেকে ৮০০ টাকা এবং বিক্রেতার কাছ থেকে ১০০টাকা নিচ্ছেন।

দূর-দূরান্ত থেকে এ হাটে আসা ক্রেতা-বিক্রেতার দাবি প্রশাসনের তদারকি না থাকায় সাধারণ মানুষ হয়রানির শিকার হচ্ছে। জানা গেছে স্থানীয় প্রশাসনের সব নিয়মকানুন অগ্রাহ্য করে পৌরসভার ২০নং ওয়ার্ডের আকাশতারা এলাকায় বিশ্বরোডের পাশে বসানো এইহাটকে নিয়ে আতংকে এলাকাবাসী। গরুর হাটে মানা হচ্ছেনা করোনার নির্দেশনা।
মাক্সনেই, দূরত্ব নেই, গরু-মানুষের গাদাগাদি যেন লক ডাউনের বিপরীত। অন্যদিকে দুজন সাংবাদিকসহ মোটরসাইকেল আরোহী ১১জন সাবগ্রামে গরুর হাটে সড়ক দুর্গঠনার শিকার হয়েছেন। এপ্রতিবেদকের মোটরসাইকেলটি রাস্তা দিয়ে যাবার সময় রাস্তায় দাঁড়ানো গরুর গুতোয় ট্রাকের চাকায় ভেঙ্গে যায়। এছাড়ার তিনটি ভুটভুটি ও আরো ৪টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার শিকার হয়েছে বলে জানা গেছে।
তবুও প্রশাসনের কোন তদারকি চোখে পড়েনি। বরং হাটে প্রশাসন নিরব দর্শকের ভূমিকায় দেখা গেছে।  ক্রেতাদের দাবি প্রশাসনের হস্তক্ষেপ ছাড়া এ জুলুম থেকে বাঁচা সম্ভব নয়। তবে প্রশাসন যে নাকে সরিষার তেল দিয়ে ঘুমাচ্ছেন এমন প্রমান রয়েছে অহরহ।
তার জলন্ত উদাহরণ হিসেবে শুক্রবার বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলার সুলতানগঞ্জ বনানীহাট, আজ বুধবার রানীরহাট গরুর হাটে ইজারাদারা বিক্রয় রশিদে কোন টাকা উল্লেখ না করেই দিব্যি হাট চালিয়ে যাচ্ছেন। তবে অজানা কারণে কোন পদক্ষেপ প্রশাসন নিচ্ছেননা বলে সবগুলি হাটে প্রায় একই অবস্থা সচেতন মানুষের দাবি।

অপরদিকে কোবরানীর শেষ দিকে বড় বড় গরু উঠতে শুরু করেছে বগুড়ার বিভিন্ন হাটে। ক্রেতাদের চাহিদার দিকে লক্ষ রেখে কোন কোন হাটে মহিষ, উন্নত জাতে ছাগল উঠেছে। তবে বেশিরভাগ চাহিদা রয়েছে দেশি ষাড়ের। দামের দিক থেকে ক্রেতারা ৪০ থেকে ৬০ হাজার টাকা মূল্যের গরুর প্রতি বেশি আগ্রহী।

পিছিয়ে নেই সৌখিন গরুর মালিকরাও। তারাও এগিয়ে এসেছেন বড় বড় গরু নিয়ে লাভের আশায়। এমননি এক খামারি গাবতলীর উনচুরকি গ্রাম থেকে ২৭ (সাতাশ) মন ওজনের একটি গরু এনেছেন। দাম হেকেছেন ৭ লক্ষ টাকা। তবে গরুটি দেখতে উৎসুক জনতা ভিড় করলেও ৪ লক্ষ টাকা পর্যন্ত গরুটির দাম উঠেছে।