মানবতার অগ্রযাত্রায় কাজ করছে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন রূপসী নওগাঁ

61
মানবতার অগ্রযাত্রায় কাজ করছে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন রূপসী নওগাঁ। ছবি-অন্তর অীাহম্মেদ

সুপ্রভাত বগুড়া (অন্তর আহম্মেদ নওগাঁ প্রতিনিধি): মানবতার অগ্রযাত্রায় কাজ করছে নওগাঁর অন্যতম স্বে”ছাসেবী সংগঠন রূপসী নওগাঁ। রূপসী নওগাঁ সংগঠন ব্যতিক্রমী একটি স্বে”ছাসেবী সংগঠন।

স্বে”ছায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোই এই সংগঠনের মূল কাজ। নওগাঁ জেলার আত্রাই উপজেলার বান্দাইখাড়া গ্রাম হতে ২০১৬ সালে এই সংগঠনের পথচলা শুরু হলেও এখন শুধু আত্রাই উপজেলাতে না এখন নওগাঁ জেলার সকল উপজেলায় একযোগে সমাজসেবামূলক কাজ করে যাচ্ছে।

এই সংগঠনের সদস্যরা নিজ উদ্দোগে স্বে”ছায় বিনামূল্যে রক্ত দান কর্মসূচি, গরীর ও অসহায়দের সাহায্য করা, ঈদে অসহায় পরিবারের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ, বন্যার্তদের ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ, গরীর ছাত্র ছাত্রীদের মাঝে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ, গরীর ও অসহায় মানুষদের বিনামূল্যে শিক্ষাদান কার্যক্রম, অসহায় শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ, বিনামূল্যে মেডিক্যাল ক্যাম্প,

সাধ্যমত বিনামূল্যে ঔষধ বিতরণ ও চিকিৎসা সেবা প্রদান, বেওয়ারিশ লাশ দাফন, বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি ছাড়াও ঝরে পড়া শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয় মুখী করা, সচেতনতামূলক সেমিনার লিফলেট বিতরণ, দেশের বিভিন্ন প্রাস্ত থেকে আসা ভর্তি”ছুক শিক্ষার্থীদের সহযোগিতা ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য কার্যক্রম রূপসী নওগাঁ সংগঠনের।

সংগঠনে রয়েছে একটি কার্যক্রম পরিচালনা কমিটি এবং উপদেষ্টা মন্ডলী। জানা গেছে, ২০১৬ সালে মোঃ খালেদ বিন ফিরোজ এই স্বে”ছাসেবী সংগঠনটি একক উদ্দোগে আত্রাই উপজেলায় গঠন করলে সমাজসেবামূলক কাজ দেখে আশপাশের অন্য যুবকেরাও এগিয়ে এসেছেন। অনেক স্কুল-কলেজের ছাত্ররাও যুক্ত হয়েছেন রূপসী নওগাঁ সংগঠনে।

যার ফলে রূপসী নওগাঁ সংগঠনটি এখন শুধু আত্রাই উপজেলায় না, পুরো নওগাঁ জেলা জুড়ে এখন সেবামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছে। সংগঠনের পরিচালক মোঃ খালেদ বিন ফিরোজ জানান, রূপসী নওগাঁ সে”ছাসেবী একটি অরাজনৈতিক সংগঠন। সংগঠনের সকল সদস্যরা মানবতার পক্ষে কাজ করে।

প্রত্যেক মানুষকেই সুশিক্ষা অর্জন করতে হবে। উ”চ শিক্ষা আর সুশিক্ষা এক নয়, উন্নত সমাজ গড়তে সুশিক্ষার বিকল্প নেই। অন্যের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রাখতে হবে। পর উপকারে প্রকৃত সুখ খুজে পাওয়া যায়। উৎসর্গ মুখী চিন্তা ভাবনা এবং কাজ করার মাধ্যমে কৃতিত্ব অর্জন করা সম্ভব।

তিনি আরও বলেন এই সংগঠনের আলাদা কোন ফান্ড নেই এবং অধিকাংশ সদস্য ছাত্র হওয়ার জন্য কার্যক্রম পরিচালনায় তাদের পক্ষে অনেক কষ্টকর হয়ে যায়, তাঁদের পাশে সমাজের বিত্তবান মানুষ এসে দাঁড়ালে হয়তো তারা আরও অনেক বেশী মানুষকে তাদের এই সেবা দিতে পারবে।