মুম্বাই সংলগ্ন এলাকায় আছড়ে পড়ল ঘূর্ণিঝড় “নিসর্গ”

146
মুম্বাই সংলগ্ন এলাকায় আছড়ে পড়ল ঘূর্ণিঝড় "নিসর্গ"। ছবি-সংগ্রহ

সুপ্রভাত বগুড়া (আন্তর্জাতিক): প্রায় ১০০ বছরেরও বেশি সময় পর মুম্বাই সংলগ্ন এলাকায় আছড়ে পড়ল কোনও ঘূর্ণিঝড়। জানা গেছে সাইক্লোন নিসর্গ, প্রবল বেগে মহারাষ্ট্র উপকূলে আছড়ে পড়েছে।

এর ফলে মুম্বাই ও সংলগ্ন এলাকায় ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি এবং ঘণ্টায় ১২০ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়া বইতে শুরু করেছে। এনডিটিভি জানায়, ইতিমধ্যেই থানে, রায়গড়, রত্নগিরি এবং সিন্ধুদুর্গ এলাকায় হাই অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে।

মুম্বইয়েও জারি করা হয়েছে রেড অ্যালার্ট। ভয়ঙ্কর শক্তিশালী ওই ঘূর্ণিঝড়ের কারণে শুধু মহারাষ্ট্রই নয়, গুজরাট, দমন-দিউ এবং দাদরা ও নগর হাভেলিতেও জারি করা হয়েছে প্রবল সতর্কতা। 

বুধবার সকাল থেকে বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত সমুদ্রের কাছে এবং উপকূলবর্তী এলাকায় যাতায়াতের বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। এই নিষেধাজ্ঞা লঙ্ঘন করে কেউ সমুদ্র বা উপকূলে গেলে তাঁর বিরুদ্ধে অপরাধদমনমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে স্পষ্ট জানিয়েছে পুলিশ প্রশাসন।

এদিকে নিসর্গের কারণে আজ (বুধবার) সন্ধে ৭টা পর্যন্ত বন্ধ থাকবে মুম্বইয়ের ছত্রপতি শিবাজি মহারাজ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পরিষেবা, ওই সময়ে কোনও বিমান ওঠা-নামা নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

বুধবার সকালে কেন্দ্রীয় আবহাওয়া অধিদফতরের তরফে জানানো হয়েছে, গোয়া এবং মুম্বইয়ে ডপলার ওয়েদার রেডার (ডিআরডব্লিউ)-এ নিরন্তর মনিটরিং করা হচ্ছে এই ঝড়।

হাওয়া অফিস বলেছে, ‘রেডারের মাধ্যমে বোঝা গিয়েছে যে নিসর্গর আই বা চোখ প্রায় ৬৫ কিলোমিটার বিস্তৃত। প্রতি ঘণ্টায় তার ব্যাস কমেছে। যার অর্থ আরও শক্তিশালী হচ্ছে ঘূর্ণিঝড় নিসর্গ।

উপকূলে আছড়ে পড়ার সময় হাওয়ার গতিবেগ হতে পারে ১১০ থেকে ১২০ কিলোমিটার পর্যন্ত। এ ছাড়া সাড়ে ছয় ফুট পর্যন্ত উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস হতে পারে বলেও জানানো হয়েছিল।’

উপকূল বরাবর মহারাষ্ট্র ও গুজরাত দুই রাজ্য মিলিয়ে জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর মোট ৩০টি দল নামানো হয়েছে। এক একটি দলে রয়েছেন ৪৫ জন।

উপকূল এলাকা থেকে লোকজনকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার পর কেউ যাতে সমুদ্রের ধারে কাছে না আসতে পারে জন্য টহল দিচ্ছেন এই বাহিনীর সদস্যরা। উপকূলরক্ষী বাহিনীর তরফেও সতর্কবার্তা দেওয়া হয়েছে মৎস্যজীবী ও বাণিজ্যিক জাহাজ চলাচলের উপর।