শাজাহানপুরে যুবলীগ নেতার হুমকিতে নিরাপত্তাহীনতায় অধ্যক্ষ !

117

সুপ্রভাত বগুড়া (আবদুল ওহাব শাজাহানপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি): বগুড়া শাজাহানপুর উপজেলা যুবলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও শাজাহানপুর থানার জিআর ৪৭/০৯ মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামী আলী ইমাম ইনোকী’র দেয়া প্রাণ নাশের হুমকিতে চরম নিরাপত্তাহীনতায় দিনাতিপাত করছেন গোহাইল ইসলামিয়া স্কুল এন্ড কেেলজের অধ্যক্ষ মোঃ মোতাহার হোসেন ও তার পরিবার।

আজ বুধবার ১৬ সেপ্টেম্বর এসব অভিযোগ এনে বগুড়া প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে ওই কলেজের অধ্যক্ষ মোতাহার হোসেন বলেন, গোহাইল স্তুল এন্ড কলেজে গভর্ণিং বডির সভাপতি হওয়ার জন্য উপজেলা যুবলীগের সিনিয়র সহসভপতি আলী ইমাম ইনোকি বেশ কিছুদিন যাবত জোর জবরদস্তি করে আসছিল।

কিন্তু ২০১৩ সালের জুলাই মাসে তার বিরুদ্ধে পোয়ালগাছা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বেশ কয়েকটি গাছকাটার অভিযোগ এবং ২০০৯ সালে সরকারী রাস্তার গাছ চুরির অভিযোগ উঠে। শুধু তাই নয়, তিনি শাজাহানপুর থানার জিআর ৪৭/০৯ মামলার সাজাপ্রাপ্ত একজন ফেরারী আসামী। এসমস্ত বিতর্কিত ও অনৈতিক কর্মকান্ডে জড়িত থাকায় এলাকায় তার গ্রহনযোগ্যতা নাই। একারনে তাকে গভর্ণিং বডির সভাপতি করা সম্ভব হয়নি।

এতে যুবলীগ নেতা ক্ষিপ্ত হয়ে দেশীয় অস্ত্র হাতে ১৫ সেপ্টেম্বর তার বাসায় হামলা করে তাকে শারীরিকভাবে লাঞ্চিত ও প্রান নাশের হুমকি দেওয়া হয়। শুধু তাই নয়, তাকে অপহরণ করার চেষ্টা করে। এতে তার স্ত্রী লাভলী আকতারের চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে এলে অপহরণ চেষ্টা ব্যার্থ হয়। তবে চলে যাবার সময় দ্রæত ৫ লক্ষ টাকা চাদা না দিলে প্রাণনাশ সহ লাশ গুম করার হুমকি দেয়া হয়।

তিনি বলেন, এ ঘটনায় মঙ্গলবার শাজাহানপুর থানায় যুবলীগ নেতা ইনোকী সহ ৭ জনকে আসামী করে অভিযোগ দায়ের করা হয়। কিন্তু অজ্ঞাত কারনে মামলাটি রেকর্ড করেনি থানা পুলিশ। এমনকি পুলিশ ঘটনাস্থলেও যায়নি। অধ্যক্ষ মোতাহার হোসেন লিখিত বক্তব্যে বলেন, বর্তমানে কলেজে একাদশ শ্রেনীতে ভর্তি কার্য্যক্রম চলছে। কিন্তু এমতাবস্থায় যুবলীগ নেতা ইনোকী ও তার বাহীনির ভয়ে তিনি কলেজে যেতে পারছেন না। তাই সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তিনি বগুড়া পুলিশ সুপারের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।