শেষ রাউন্ডেও নৌপুণ্যের দাপট দেখিয়ে জয় তুলে নিয়েছে লিভারপুল

98
শেষ রাউন্ডেও নৌপুণ্যের দাপট দেখিয়ে জয় তুলে নিয়েছে লিভারপুল ছবি-সংগ্রহ

সুপ্রভাত বগুড়া (খেলা-ধুলা): ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের শেষ রাউন্ডেও নৌপুণ্যের দাপট দেখিয়ে জয় তুলে নিয়েছে লিভারপুল। যদিও এক মাস আগেই তাদের শিরোপা নিশ্চিত হয়েছিল।

ইতিহাসে এক মৌসুমে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পয়েন্ট নিয়ে আসর শেষ করলো চ্যাম্পিয়ন লিভারপুল।

দলটির পয়েন্ট ৯৯, অল্পের জন্য সেঞ্চুরি মিস করেছে।রোববার রাতে প্রিমিয়ার লিগের শেষ রাউন্ডে নিউক্যাসল ইউনাইটেডের বিপক্ষে ৩-১ গোলের জয় তুলে নেয় ইয়ুর্গেন ক্লপের দল।

যদিও ডোয়াইট গেইলের গোলে প্রথম মিনিটেই পিছিয়ে পড়েছিল লিভারপুল। তারপর ভার্জিল ফন ডিইক, ডিভক ওরিগি ও সাদিও মানের গোলে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে লিভারপুল।

ম্যাচের ২৭ সেকেন্ডের মাথায় আচমকা গোল খেয়ে বসে লিভারপুল। ইংলিশ ফরোয়ার্ড ডোয়াইট গেইল প্রথমে গোল করে নিউক্যাসলকে এগিয়ে রাখেন।

এরপর লিভারপুল বারবার প্রতিপক্ষের রক্ষণে গিয়ে হানা দিতে থাকে। কিন্তু গোলের দেখা পাচ্ছিল না দলটি। তবে ম্যাচের ৩৮তম মিনিটে প্রথম গোলের দেখা পায় লিভারপুল।

ফন ডাইকের গোলে ম্যাচে সমতায় ফেরে ইয়ুর্গেন ক্লপের দল। ১-১ গোলের সমতায় রেখে দুই দল বিরতিতে যায়।দ্বিতীয়ার্থে মাঠে ফিরে আক্রমণ শানাতে থাকে লিভারপুল।

ম্যাচের ৫৯তম মিনিটে দলকে এগিয়ে নেন ওরিগি। ডি-বক্সের বাইরে থেকে জোরালো শটে ঠিকানা খুঁজে নেন এই বেলজিয়ান ফরোয়ার্ড। এর কিছুক্ষণ পর একসঙ্গে বদলি নামেন সালাহ, মানে ও ফিরমিনো।

তখন দলের গতি আরও বেড়ে যায়। তবে গোল পাচ্ছিলেন না তারা। ম্যাচের শেষ মুহূর্তে গোল পান মানে। ম্যাচের ৮৯তম মিনিটে ব্যবধান ৩-১ করে ফেলেন তিনি।

এই জয়ে ৩৮ ম্যাচে ৩২ জয় ও ৩ ড্রয়ে  ৯৯ পয়েন্ট নিয়ে আসর শেষ করলো দলটি। এক মৌসুমে লিভারপুলের চেয়ে বেশি পয়েন্ট নিয়ে আসর শেষ করার কীর্তি রয়েছে ম্যানচেস্টার সিটির। তারা দুই মৌসুম আগে পয়েন্টের সেঞ্চুরি পেয়েছিল।

এই মওসুমে ম্যানচেস্টার সিটি ৮১ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে থেকে আসর শেষ করল। শেষ দিনে তারা নরিচ সিটিকে ৫-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে। দলটির পক্ষে জোড়া গোল করেন কেভিন ডি ব্রুইন।

একটি করে গোল গ্যাব্রিয়েল জেসুস, রাহিম স্টার্লিং ও রিয়াদ মাহরেজ।লিভারপুলের চ্যাম্পিয়ন হওয়া আর ম্যানসিটির রানার্সআপ হওয়া নির্ধারণ হয়ে গিয়েছিল আগেই।

শেষ দিনে এই দুই দলের পরের দুই স্থানে থেকে কোন দুই দল চ্যাম্পিয়ন্স লিগ নিশ্চিত করে সে রোমাঞ্চ ছিল। সেখানে ৬৬ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড।

চেলসির পয়েন্টও সমান ৬৬, তবে গোল ব্যবধানে পিছিয়ে চার নম্বর তারা। অবনমিত হয়ে গেছে বোর্নমাউথ, ওয়াটফোর্ড ও নরউইচ সিটি।