সফল হতে প্রয়োজন দৃঢ় মনোবল ও পরিশ্রম

562

এম রাসেল আহমেদ: করেন বেসরকারী আর্থিক প্রতিষ্ঠানে চাকুরী স্বপ্ন ছোয়ার নেশা তাড়া করে বারবার।সেই স্বপ্নবুনা শুরু তার। নানা চড়ায় উৎরায় পেরিয়ে চাকুরীর পাশাপাশি গড়ে তোলেন মিশ্রফলবাগান। তিনি আবু তাহের ফারুক। জয়পুরহাট জেলার অন্তর্গত ক্ষেতলাল উপজেলার মাহমুদপুর গ্রামে“ রুহুল এন্ট্রিগ্রেটেড এগ্রো ফার্ম” নামে একটি কৃষি ভিত্তিক খামার গড়ে তুলেছেন তিনি।

তার এই সাফল্যের পিছনে রয়েছে অক্লান্ত পরিশ্রম ও দৃঢ় মনোবল। পেয়েছেন পিতা-মাতার অনুপ্রেরণা ও সহযোগিতা। পিতা মোঃ রুহুল আমিন একজন মাছ চাষি। মাছ চাষের সাথে জড়িত থাকায় ফলের মিশ্রফলবাগানের আইডিয়া আসে মাথায়।
তার বাগানে রয়েছে দেশ-বিদেশের নাম জানা-অজানা প্রায় শতাধিক জাতের ফল গাছ। তিনি প্রায় ১৫ বিঘা জমির উপর সমন্বিত কৃষি খামার গড়ে তোলেন। খামারের পাশে পুকুর খনন করে তাতে মাছ চাষসহ, উন্নত জাতের কমলা, মাল্টা, আম, লেবু, ড্রাগন, লটকন, লিচু, বড়ই, নাড়িকেল, সুপারী, শরীফা, কলা, মালব্রেরী, এগ ফ্রট, আনাড়, সফেদা, এভোকাডো, আলু বোখারা, পাম, লংগান, আঙ্গুও সহ বিভিন্ন গাছ ও চারা। তার কাজে সহযোগীতার করেন তার পিতা সহ কিছু কর্মচারী।

চাকুরীর সুবাদে দেশ-বিদেশ থেকে বিভিন্ন জাতের ফলের চারা সংগ্রহ করে বাণিজ্যিক মিশ্র বাগান গড়ার পরিকল্পনা শুরু করেছিলেন। এখন তার বাগানে ঝুলছে হরেক রকমের মাল্টা, কমলা ও শরিফা। বাগানে রয়েছে প্রায় ৫০ প্রজাতির আম ( কাটিমন যা বারমাসি), ২৩ প্রজাতির মাল্টা, ১০ প্রজাতির কমলা, ১৬ প্রজাতির লেবু ও ৮ প্রজাতির ড্রাগন।

প্রচলিত আম ছাড়াও বাগানে সূর্যডিম, চিয়াংমাই, চাকাপাত, নাম ডকমাই সবুজ, নাম ডকমাই ইয়েলো, নাম ডকমাই শ্রি মুয়াং, থাই কিং, কিংসটন প্রাইড, অষ্টিন, মহাচানক, হানি ডিউ, কিউসাভয়, লেট খিরসাপাত, বাঘাশাহী, জিএমস-১, কেন্ট, কেইট, থ্রি-টেষ্ট, আলফান্সু, আনোয়ার রাতুল, দশেরী, লেডিজেন, ইন্দোনিশিয়ান পার্পল, পুসা অরুনিমা, পুসা সুরিয়া, আশ্বিনা গোহাটি, কিউজাই, কাটিমন, সেভেন স্টেপ, ব্রুনাই কিং, বারি ১৩, বারি ১৪, বারি ১৮, গোলাপ খাস, পাকিস্থানী চোষা, বিএন ৭, জি হুয়াং প্রভৃতি আমের মাতৃগাছ রয়েছে। মাল্টার মধ্যে রয়েছে ওয়াশিংটন নেভাল, নেভাল বালাদী, কিং মাল্টা, সাম্মউতি মাল্টা, ভিয়েতনামী বারোমাসি মাল্টা, আফ্রিকান মাল্টা, মিশরীয় মাল্টা, জোফফা মাল্টা, পাকিস্থানী কেনু, কাশ্মিরী কেনু, ডেকোপন মেন্ডারিন, জাপানিজ সাতসুমা মেন্ডারিন, দার্জিলিং মাল্টা, থাই মাল্টা, কমলা ও পৃথিবী বিখ্যাত কারাকারা মাল্টা, রুবি গ্রেপ ফ্রুট, লেন্স লেইট ও বারি ১ মাল্টা। তার সাথে কথা বলে জানা যায় সফল হতে প্রয়োজন দৃঢ় মনোবল ও পরিশ্রম।

তিনি শুধু নিজেই সফল হয়ে থেমে থাকেনি এলাকার বিভিন্ন ফল বাগানী, ছাদ কৃষি, ছাদ ফল বাগানীদের বিভিন্ন প্রকার প্রশিক্ষণ দিয়ে চলছেন। এলাকার বেকার মানুষদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, যেহেতু জয়পুরহাট জেলার ক্ষেতলাল উপজেলা কৃষি নির্ভর তাই পড়াশোনা করে বেকার না থেকে উদ্দোক্তা হোন, দেখবেন চাকুরী করতে হবেনা একদিন নিজেই চাকুরী দিবেন।

তিনি যে সকল ফল বা ফসল চড়া দামে কিনতে হয় বা বিদেশ থেকে আমদানী করতে হয় সেগুলোর মধ্যে যেগুলো এই মাটিতে ভালো ফলাফল পাওয়া যায় সে সকল ফসল ফলিয়ে নিজ এলাকাকে সমৃদ্ধ করে চলছেন। প্রতি শুক্রবার ও শনিবার তার বাগানে প্রচুর মানুষ পরিদর্শনে আসেন।

*এম রাসেল আহমেদ