৭৭ বছরের বৃদ্ধের প্রেমে পাগল ২০ বছরের তরুণী !

110
৭৭ বছরের বৃদ্ধের প্রেমে পাগল ২০ বছরের তরুণী !

কথায় আছে, প্রেমের ফাঁদ পাতা ভুবনজুড়ে। প্রেম শোনে না কোনও বারণ। মানে না কোনও বাধা। সেই প্রবাদকেই যেন মনে করিয়ে দিচ্ছে ডেভিড আর জো-এর গল্প। ৭৭ বছরের এই বুড়োর প্রেমে হাবুডুবু খাচ্ছেন ২০ বছরের যুবতী! আর গোটা দুনিয়ায় ভাইরাল তাঁদের এমন ‘আজব-গজব’ প্রেম কাহিনী। ২০ বছরের যুবতী জো আদতে মিয়ানমারের বাসিন্দা। সেখানকারই এক কলেজে পড়েন এই তরুণী। অন্যদিকে ৭৭ বছরের ‘প্রেমিক’ ডেভিড থাকেন ইংল্যান্ডে।

পেশায় জো একজন মিউজিক প্রোডিউসার। দুজনের বয়সের ব্যবধান ৫৭ বছরের। কিন্তু বয়সের পার্থক্য দুজনের মন বিনিময়ের মাঝে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারেনি। একে অন্যের প্রেমে এতটাই মজেছেন যে, কেউ কাউকে ছেড়ে থাকতে পারছেন না। একে অপরের প্রেমে মশগুল সরাক্ষণ। এমনকি খুব তাড়াতাড়ি বিয়েও করতে চলেছেন দুজনে!

প্রেমিক ডেভিড নিঃসন্তান। জানা গেছে, একটা ডেটিং সাইটের মাধ্যমেই তাঁদের আলাপ। তারপর থেকে গত দেড় বছর ধরে একে অপরের সঙ্গে ‘ডেট’ করছেন ডেভিড ও জো। যদিও সবটাই ভার্চুয়াল, তবে কয়েক হাজার মাইলের পথের দূরত্বেও তাঁদের ‘রিলেশনশিপ’ আছে বহাল তবিয়তে। জানা গেছে, ডেটিং সাইটে জো খুঁজছিলেন একজন মেন্টরকে। যে কিনা তাঁর পড়াশোনায় আর্থিক সহায়তা করার পাশাপাশি মানসিকভাবেও সঙ্গ দেবে, সাহচর্য দেবে।

অন্যদিকে, ‘রোমান্টিক’ ডেভিড মাঝেমধ্যেই ডেটিং সাইটে উঁকি-ঝুঁকি দিতেন ‘ফ্লার্ট’ করতে। আসলে বয়স ৮০-র কোঠায় হলেও ডেভিড অবশ্য নিজেকে বুড়ো বা বয়স্ক ভাবতে ও বলতে নারাজ। তাঁর কথায়, তিনি নিজেকে সবসময় ‘যুবক’-ই ভাবেন। এভাবেই অসম বয়সী এই যুগলের আলাপ পরিচয়। তারপর বন্ধুত্ব ও প্রেম। দুজনকে দুজনকে বলেন ‘সবচেয়ে কাছের বন্ধু’।

একে অপরকে মানেন ‘জীবনসাথী’ হিসেবে। এমনকি ২০ বছরের তরুণী জো এও জানিয়েছেন, তাঁরা দুজনেই খুব শিগগিরই বিয়ে করবেন। কোভিড পরিস্থিতিতে এখন তিনি ইংল্যান্ডে যেতে পারছেন না ঠিকই। তবে তাঁর পাসপোর্ট হয়ে গেলেই, তিনি ৫৭ বছরের বড় প্রেমিক ডেভিডের সঙ্গে দেখা করতে ব্রিটেন যাবেন। সূত্র- জি নিউজ।